You are currently viewing বিশ্বের নয়টি এডভান্স রোবট (Part-7)

বিশ্বের নয়টি এডভান্স রোবট (Part-7)

হ্যালো বন্ধুরা,

কেমন আছেন আপনারা সবাই। আশা করছি সবাই ভালই আছে আমাদের এই সিরিজের কোন কোন পর্বে আমরা রোবটের দৌড়াতে দেখেছি, কোন কোন পর্বে আকাশে উঠতে ও দেখেছি। তাহলে পানিতে ডুব দেওয়া বাকি থাকবে কেন? তো চলুন আজকে এর রোবটের মাধ্যমে আমরা পানি থেকে ঘুরে আসি।

AQUANAUT in Teat Lab

“AQUANAUT-The Transformer Under the sea” নামের এই রোবটটি ২০১৯ সালে তৈরী করে Huston Mechatronics Inc. নামক একটি আমেরিকান কোম্পানি। এ কোম্পানি মূলত Cloud based ecosystem এর Subsea রোবট তৈরী করে যা পানির নিচে বিভিন্ন কাজ করে থাকে। Aquanaut ছাড়াও আরো ২ধরনের রোবট (Commander, Olympic arm) তৈরী করেছে এ কোম্পানি।

Aquanaut হল একটি Transformer যা পানির নিচে গিয়ে কাজ করে। সাধারন অবস্থায় দেখতে এ রোবটটিকে Submarine বলে ভাবলেও কেউ ভুল করবে না। কিন্তু এটিি আসলে মূলত একটি Transforming Vehicle যা পানির নিচে Worksite এ গিয়ে তার হাত মেলে রোবটে পরিনত হয়। হাত মেলে ধরার পর সে তার নির্দিষ্ট কাজ করতে যাকে যেই কাজ নিয়ন্ত্রিত হয় কোন এক কম্পিউটার থেকে তাকে Command দেয়া হলে। অর্থাৎ Aquanaut কে নিয়ন্ত্রণ করা হয় জলের উপর থেকে। Traditional ROV নিয়মেই সে কাজ করে থাকে। ROV কি তা বিশাল এক আলোচনা। তা অন্য কোন পর্বে করা যাবে। আজ না হয় Aquanaut কে নিয়েই জানতে থাকি।

এ রোবটি বানানোর পিছনে মূলত কিছু কমার্শিয়াল ব্যাপার জড়িয়ে ছিল। যখন HMI company দেখলো বিশ্বের নানান যায়গায় পানির নিচের তেল উত্তোলন, খনিজ পদার্থ সন্ধান, গবেষনার কাজে সেই পুরনো ROV নিয়ম চলে আসছে তখন তারা চিন্তা করলো কেননা এই শিল্পে Intelligence এর ব্যবহার করা হচ্ছে না। আর এতে করে Gulf দেশগুলো থেকে প্রচুর অর্থও উপার্জন করা যাবে। সেই চিন্তা থেকেই জন্ম নিল Aquanaut এর।আর এসব চিন্তা কাদের মাথায় আসে জানেন? নাসার মত প্রতিষ্টানে কাজ করা Scientistsদের। আপনি জেনে অবাক হবেন যে HMI তে প্রায় সবাই NASA এর Ex Scientists. তাহলে ভেবে দেখুন, কেন তাদের মাথায় এসব চিন্তা আসে।অবশ্য পানির নিচে মানুষ কাজ করতে গেলে নানান ধরনের প্রতিবন্ধকতা থাকে। প্রথমত, মানুষের কাজের গতি অনেক কমে যায়, সময় সাপেক্ষ ব্যাপার আর সবচেয়ে বেশি থাকে জীবনের ঝুঁকি। এসব ব্যপার বিবেচনা করেই Aquanaut তৈরী। পৃথিবীর যে কোন স্থানে পানির নিচে কোন Maintaining কাজ করতে গেলে ROV সিস্টেমে কাজ করতে হয় যা অনেক পুরনো পদ্মতি। বিজ্ঞানের এ যুগে এসে প্রতিটি খাতই যখন AI এর দিকে যাচ্ছে তখন এ খাতইবা বাদ যাবে কেন। তখন HMI এ পদ্মতির সাথে Intelligence এর মিশ্রন ঘটিয়ে খরচ এবং ঝুঁকি দুটোই কমাতে সক্ষম হয়েছে।

AQUANAUTE before transform

চলুন দেখে নেয়া যাক কিভাবে কাজ করে Aquanaut:বন্ধ অবস্থায় প্রায় ৩৮ ইঞ্চি Height ও খোলা অবস্থায় প্রায় ৬৩ ইঞ্চির এ জলের রোবটের ওজন প্রায় ১০৫০ কেজি। ও গতি থাকে প্রায় ১৩কিঃমিঃ প্রতি ঘন্টায় কিন্তু AUVমোডে এ রোবটটি প্রায় ১০৮knots বা ২০০কিঃমিঃ হয়ে থাকে। Lithium-ion ব্যাটারি দ্বারা চলে এ রোবটটি। Aquanaut রোবটি নিয়ন্ত্রনের সময় ROS এর Custom Framework এ নিয়ন্ত্রিত হয়। তবে Aquanaut এর দাম নিয়ে তেমন জানা না গেলেও HMI কোম্পানির তৈরীর সময়কার বাজেট নিয়ে জানা যায়। HMI প্রতিষ্টা করার সময় তাদের বিনিয়োগ ছিলোো প্রায় ২৩মিলিয়ন ডলার। প্রায় ২৬টি Degrees of freedom(D.O.F.) এ চলে এ রোবট। D.O.F. নিয়ে বিস্তারিত আছে আমার এ সিরিজের ৩য় পর্বে (LINK)। চাইলে দেখে নিতে পারেন।D.O.F গুলোঃ

  1. Arm: 7 DoF x 2
  2. Arm end-effector: 1 DoF x 2
  3. Propulsion: 7 DoF
  4. Head: 2 DoF
  5. Transformation Mechanism: 1 DoF

মজার তথ্যঃ

১/ Aquanaut কে যে পুলে টেস্ট করা হয়েছিলো তা ছিলো নাসার Neutral Bouyancy Labএ। যে পুলটি মহাকাশচারীদের Zero Gravity Environment বুঝাতে ব্যাবহৃত হয়।

২/ HMI তাদের যে সব রোবট তৈরী করছে তা সবই কোন না কোন ভাবে Transformers এর মত। তাই তারা মজা করে বলে, Transformer তৈরী করাই তাদের ক্যারিয়ারের মূল লক্ষ্য।

৩/ প্রায় ২৪ জনের মত নাসার Ex employees কাজ করে HMIএ।

Videos:

  1. This Submarine Is a Real-Life Transformer
  2. Aquanaut doing a slow wave to check joint movement
  3. A Skilled Humanoid Robot.

Leave a Reply